বিদায় অবুঝ বাঙালি, সৃতি হিসেবে থাকুক কয়েকটা কথা

অবুঝ বাঙালি, হাস্যকর একটা নাম তাই না? কিন্তু এই নামটিকে আমি অনেক ভালোবাসি। কারন, এই নামটি আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। এই নাম নিয়েই ফেসবুক ব্যবহার বলতে যা বুঝায়, তা শুরু করেছিলাম। অনেকেই প্রশ্ন করেছেন যে, কেন আমি এই নাম বেছে নিয়েছি। পরিষ্কারভাবে আমি কাউকে কিছু বলিনি, হতে পারে আমি নিজেও জানি না কেন এই নাম নিয়েছি।

নামটা পছন্দ করেছিলাম হঠাৎ করে একদিন রাত ২টার দিকে। তখন আমার নিক নেম দিয়ে ফেসবুক একাউন্ট ছিল। যাই হোক, নাম বাছাই করার সময়ে ঠিক বলতে পারব না কেন যেন খুব দেশপ্রেম অনুভব করছিলাম। এর কারন হতে পারে ওইদিন সারাদিন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বেশ কয়েকটা গল্প পড়েছিলাম। তার মধ্যে একটা গল্প পড়ে আমি কেঁদে ফেলেছিলাম। বাস্তব জীবনে আমি পরিপূর্ণ দেশপ্রেমিক না, আমিও নিজের স্বার্থটাকেই প্রাধান্য দেই। কিন্তু মাঝে মাঝে দেশপ্রেমিক হতে ইচ্ছে করে। যাই হোক, নামটার অর্থটা হল যে, কোনোকিছু বুঝেও না বুঝার ভান করা বাঙালি। বাস্তব জীবনে দেশের প্রতি বা সমাজের প্রতি আমাদের অনেক কিছুই করার থাকে, যা আমরা ভালোভাবেই অনুধাবন করতে পারি। কিন্তু না বুঝার ভান করি বা করতে বাধ্য হই। নিজের উপর রাগ করেই নামটা নিজের নাম হিসেবে পরিচিত করেছিলাম। আমার নামের মতই আমি সবসময় সবকিছু না বুঝার ভান করে থাকার চেষ্টা করেছি, কিন্তু মাঝে মাঝে না বুঝার ভান করতে পারি নি। এজন্য অবশ্য ফ্যামিলি থেকে বকাও খেতে হয়েছে। যাই হোক অনেক কথা বলে ফেললাম, আমার নামের অর্থ এটুকুই…

এই অবুঝ বাঙালি নামের মানুষটা যদি কারো মনে কোন দুঃখ দিয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে ক্ষমা করে দেয়ার অনুরধ করছি। বিদায় বন্ধু…

পোষ্টটি ভালো লাগলে, বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ